Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / পরামর্শ / পেটের গ্যাস বা এসিডিটি থেকে মুক্তি পেতে ১০ টি ঘরোয়া পদ্ধতি !!!!

পেটের গ্যাস বা এসিডিটি থেকে মুক্তি পেতে ১০ টি ঘরোয়া পদ্ধতি !!!!

পেটে গ্যাস বা এসিডিটির সমস্যার সমাধান

আজকাল পেটে গ্যাস বা গ্যাস্ট্রিক নেই এমন একজনকেও বোধ হয় খুঁজে পাওয়া বিরল!পাকিস্থলির গ্যাস্ট্রিক গ্ল্যান্ডে অতিরিক্ত এসিড নিঃসরণ হলে পেটে অ্যাসিডিটি বা গ্যাসের সমস্যা সৃষ্টি হয়।

নানা কারণেই সাধারণত পেটের গ্যাস হতে পারে গ্যাস বা গ্যাস্ট্রিক এর প্রধান কারণ হলো :-

***অতিরিক্ত তেলেভাজা ও তেল জাতীয় খাবার, সফট ড্রিংকস, ঝাল খাবার, খাবার ভালোভাবে চিবিয়ে না খাওয়া, হজমে সমস্যা , অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা, ধুমপানখাবার খাওয়ায় অনিয়ম, মশলাদার খাবার খাওয়া, খালি পেটে থাকা বা অতিরিক্ত চা খাওয়া, অ্যালকোহল বা কফি পানের কারণে পেটে গ্যাসের সমস্যা সৃষ্টি হয়।

***গ্যাসের কারণে পেট ফুলে যাওয়া, ঢেকুর, হেঁচকি ওঠা, বুকে জ্বালা-পোড়া এবং ওগরানোর মতো সমস্যা হতে পারে।

***তবে এমন কতগুলো ঘরোয়া ওষুধ ও পদ্ধতি রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করলে আপনি গ্যাস-অম্বলের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

১। হলুদ :-

হলুদ গ্যাসের জন্য ভালো ওষুধ। প্রতিদিন একগ্লাস দুধে দুই চা চামচ হলুদ বাটা মিশিয়ে খেলে গ্যাসের সমস্যা দূর হয়।

২। দারচিনি :-

পেটের এসিডিটি কমাতে দারুচিনির ব্যবহার অতুলনীয় । এক গ্লাস দুধে ১/২ চা চামচ দারুচিনি গুড়া ও মধু মিশিয়ে খান, এতে করে পেটের গ্যাস একেবারে কমে যাবে।

৩। আপেল সাইডার ভিনেগার :-

এক গ্লাস গরম পানিতে দুই টেবিল চামচ আপেল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে ঠাণ্ডা করুন। ঠাণ্ডা হয়ে এলে ধীরে ধীরে পান করুন। আপেল সাইডার ভিনেগার পান করার ফলে এসিডিটি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

৪। বেকিং সোডা :-

বেকিং সোডা গ্যাস তাড়াতে খুব ভালো কাজ করে। একগ্লাস পানিতে 2/5 চা চামচ বেকিং পাউডার মিশিয়ে পান করুন। এছাড়াও এক গ্লাস পানিতে লেবুর রস ও এক চিমটি বেকিং পাউডার মিশিয়ে খেলেও উপকার পাবেন।

৫। পেয়ারা পাতা :-

এসিডিটি কমাতে পেয়ারার পাতার ব্যবহার অতুলনীয় । ৭ থেকে ৮ টি পেয়ারা পাতা পানিতে ১৫ মিনিট সেদ্ধ করুন। তারপর ছেঁকে ঠাণ্ডা করে এর পানি পান করুন। গ্যাস্ট্রিক সারাতে এটি অনেকাংশে উপকার করবে ।

৬। পুদিনা পাতা :-

পুদিনা পাতা এসিড নিঃসরণের গতি কমায়। এই পাতার একটি শীতলীকরণ প্রভাবও আছে। যা এসিড রিফ্লাক্সের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যথা এবং জ্বালাপোড়া কমায়। কয়েকটি পুদিনা পাতা কুচি কুচি করে একটি পাত্রে পানি নিয়ে সেদ্ধ করে নিন। এরপর পানিটুক ছেঁকে ঠাণ্ডা করে পান করুন।

৭। লবঙ্গ :-

লবঙ্গ এটি পাকিস্থলিতে গ্যাস উৎপাদন প্রতিরোধ করে। প্রতিদিন দুটি লবঙ্গ চিবিয়ে খেলে আপনি গ্যাসের সমস্যা চিরতরে থেকে মুক্তি পাবেন।

৮। এলাচ :-

এলাচ হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটি অতিরিক্ত এসিড নিঃসরণের কুপ্রভাব হতে দূর করে। দুটি এলাচ গুড়ো করে পানিতে সেদ্ধ করে পানিটুক পান করে নিন। এতে করে পেটের অ্যাসিডিটি অনেকাংশে কমে যাবে।

৯ । আমলকি :-

আমলকি শরীরের জন্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল। এটি হজমে অনেক সাহায্য করে । প্রতিদিন খালি পেটে আমলকির জুস খেলে শরীরে ব্যাপক শক্তি সঞ্চিত হয়। আমলকিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে, যা এসিডিটি এবং কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে বেশ সহায়ক।

১০ । আলুর রস/জুস :-

পাকস্থলীতে এসিডিটির প্রভাব কমাতে আলুর রস বা জুস খুবই উপকারী। কয়েকটি ছোট আকারের আলু পিষে অথবা ব্লেন্ড করে পানিতে খানিকটা মধু এবং লবণ দিয়ে খাওয়ার আগে খেলে বেশ ভালো উপকার পাওয়া যায়।

 

****বেশি করে পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে যেমন পালং শাক, কলা, মটরশুঁটি, কফি, দই, রেসিনাস, প্রোু জুস, বাদাম ইত্যাদি। কারন পটাশিয়াম দেহের তরলের ভারসাম্যতা নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ।

Comments

About Admin Md. Lokman Hossen

আমার এ প্রেম নয় তো ভীরু, নয় তো হীনবল - শুধু কি এ ব্যাকুল হয়ে ফেলবে অশ্রুজল। মন্দমধুর সুখে শোভায় প্রেম কে কেন ঘুমে ডোবায়। তোমার সাথে জাগতে সে চায় আনন্দে পাগল।

Check Also

Beautiful img

ত্বকের উজ্জ্বল বৃদ্ধিতে মধুর ব্যবহার

*মুখের সৌন্দর্য বাড়াতে মধুর ব্যবহার অতুলনীয়* মধু আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ।মধু আমাদের অনেক কাজে লাগে। মধুর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *